২৩শে জুন, ২০১৮ ইং | ৯ই আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | দুপুর ২:০৯

মুক্তিযোদ্ধা সংসদ অনুসন্ধানঃ চট্টগ্রাম ১১ উপজেলায় ৭৬৮ জন রাজাকার

রাজিব শর্মা,(চট্টগ্রাম ব্যুরো) ঃ চট্টগ্রামের ১১ উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধা সংসদের অনুসন্ধানে রাজাকার, আলবদর ও আলশামস রয়েছে ৭৬৮ জন। ১৯৭১ সালে তাদের হাতেই রক্তে রঞ্জিত হয়েছিল চট্টগ্রাম।

তাদের মধ্যে সীতাকুন্ড উপজেলায় ২৩৮, মিরসরাইয়ে ২২, সন্দ্বীপে ৮৩, ফটিকছড়িতে ৬৬ জন, রাউজানে ১১১, বোয়ালখালীতে ৩২, পটিয়ায় ১২৩, আনোয়ারায় ২৪, সাতকানিয়ায় ৫০, লোহাগাড়ায় ১৫ এবং বাঁশখালীতে রয়েছে ২৪ জন। ১১ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সংগৃহীত তালিকা থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

চট্টগ্রাম জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো. শাহাবউদ্দিন বলেন, চট্টগ্রাম মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ২০১৩ সালের আগস্ট থেকে ১১ উপজেলায় রাজাকার, আলবদর, আলশামসদের তালিকা সংগ্রহ শুরু করে। এ তালিকা ইউনিয়ন কমান্ড থেকে উপজেলা কমান্ড হয়ে পৌছে জেলা সংসদ কমান্ডে। এ তালিকার বাইরেও আরও অনেক রাজাকার রয়েছে।’ সরকারের আগেই তারা এ তালিকা তৈরি করেছেন বলেও দাবি করেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, আমরা ‘মুক্তিযুদ্ধে চট্টগ্রাম’ বইয়ে ১১ উপজেলার রাজাকারদের তালিকা প্রকাশ করেছি। এই তালিকাটি ২০১৪ সালের ৫ সেপ্টেম্বর জেলা সংসদ কর্তৃক প্রকাশিত হয়। ‘চট্টগ্রামে ৭৬৮ রাজাকারদের মধ্যে মিরসরাই উপজেলার গণহত্যাকারী রাজাকার আজাহার সোবহান, উত্তর জেলা জামায়াতের সাবেক আমির অধ্যাপক মফিজুর রহমান, শামসুদ্দিন, মেজর আলী আকবর চৌধুরী প্রকাশ ছুটু মিয়া, ব্রিগেডিয়ার সিরাজ, সিরাজউদ্দৌলা সিরাজ, মোহাম্মদ নোমান, জালাল উদ্দিন চৌধুরী, মাস্টার নুর ছালাম, মোশারফ হোসেন, মৌলভী আমিনুল হক, নুরে জমা, হোসেন মোমিন, মাস্টার নুরুল আমিন ও মজাহারুন্নবী প্রকাশ আজিম রয়েছে।

সীতাকুণ্ডের রাজাকাররা হলো পাকিস্তান সরকারের মন্ত্রী অধ্যাপক সামসুল হক, মীর মোশাররফ হোসেন সমু, মীর মোজাম্মেল হোসেন লেদু, ইব্রাহিম মাস্টার, কমান্ডার সিরাজুল ইসলাম, বিএ ফয়েজ উল্লা, কমান্ডার আনোয়ার, সিরাজ মাস্টার, হাফেজ সিরাজ, মনির গোলবক্সসহ ২৩৮ জন।

সন্দ্বীপের রাজাকার খবির আহমদ, রফিকুল মাওলা, আমির খসরু, হাফিজ আহমেদ, আবদুল মান্নান, নুরুল্লাহ, আবদুল বাতিন, মান্নান আহমেদ, নুরুল ইসলাম, আবুল কাশেম, মো. হুমায়ুন, ছয়েদুর রহমান, নুরাস সাফা, মোজাফফর আহমেদ, মোবাশ্বের আহমেদ, মো. ইসমাইলসহ ৮৩ জন। ফটিকছড়ির ছৈয়দ সামসুল আলম, শামসুল আলম, আবু তালেব, বাদশা মিয়া, শেখ আবু, দবির আহমেদ, ফোরকান আহমেদ চৌধুরী, বেদ্ধ মিয়া, জহুরুল হক, জাগির আহমেদ, বজল আহমেদ, মো. ইউসুফ, নুরুল হক মাস্টার, টুনু চৌকিদার, আবুল কমান্ডার, মওলানা জানে আলম, আহমদ ছফাসহ ৬৬ জন।রাউজানের রাজাকাররা হলো_ আহামদ বক্স রাজাকার কমান্ডার, কাদের মিয়া, সুলতান আহমেদ, ননা মিয়া, এজলস মিয়া, মীর আহমদ, নুরুল ইসলাম, সউপ্যা, মুন্সি মিয়া, ডা. গণেশ চন্দ্র বড়ূয়া, জালাল মেম্বার, আবুল কাশেমসহ ১১১ জন।

বোয়ালখালীর নুরুল আলম কমান্ডার, কমান্ডার শেখ মোজাফর আহমদ খান, আহমদ হোসেন ডিলার, অ্যাডভোকেট এবাদুল্লাহ, এজাহার মিঞা, মসিউদৌল্লা রাজাকার, মৌলানা জাকির হোসেন, মৌলানা নুর মোহাম্মদসহ ৩২ জন।পটিয়ার হাফেজ ইউনুছ, হাফেজ আহমদ, নাসির উদ্দিন মাস্টার, হাজি আবু ছিদ্দিক, রিয়াজ উদ্দিন মাস্টার, মওলানা আবুল হাসেম চৌধুরী, মাহমুদুল হক চৌধুরী, মওলানা আবদুস ছবুর, মওলানা আজিজুল হক, মওলানা মুছা, হাজি আবদুস সালাম সিকদার, মওলানা আলী আহমদ, হাফেজ মওলানা মোহাম্মদ ইউনুছ, কালু মিয়া মেম্বার, ছৈয়দ বৈদ্যাসহ ১২৩ জন।আনোয়ারার উকিল ফজল করিম কমান্ডার, আইয়ুব আলী চৌধুরী, আবদুল গনি চৌধুরী, আব্বাস উদ্দিন আহম্মদ চৌধুরী, হেফাজতুল রহমান চৌধুরী, আবদুল জলিল চৌধুরী বিএ, রেজাউল করিম চৌধুরী, মমতাজ উদ্দিন আহম্মদ চৌধুরী, নুর মোহাম্মদ চৌধুরী, মৌলানা আবদুল হাফেজসহ ২৪ জন।

সাতকানিয়ার নুরুল ইসলাম চৌধুরী, নুর আহাম্মদ, আবদুল করিম, মো. এয়াকুব, গোলাম রহমান, হাফেজ আহমেদ, আবদুস শুক্কুর, মফিজুর রহমান, গোলাম রব্বানি, জাকির হোসেনসহ ৫০ জন।লোহাগাড়ার মো. হাফেজ, ফয়েজ আহমদ, হাফেজ মজ্জুলুর রহমান, মৌলভী আবদুস শুক্কুর, মৌলভী ইউসুফ, হাফেজ আবদুর রাজ্জাক, মৌলভী মোহাম্মদ আলী, গোলাম রহমানসহ ২৫ জন। বাঁশখালীতে মওলানা আতাউল কবির চৌধুরী, শমশু মাস্টার, মোস্তাক আহমদ মাস্টার, মৌলভী হোসেন, আবুল কাশেম চৌধুরীসহ ২৪ জন রাজাকার রয়েছে।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.