২৩শে জুন, ২০১৮ ইং | ৯ই আষাঢ়, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ১০:২৫

বাংলাদেশে হিন্দু ভোট, শুধু মিষ্টি কথায় চিড়া ভিজবে না?

সেদিন গুগুল-এ বাংলাদেশে সংখ্যালঘু নির্যাতন, হিন্দু মন্দির ও মুর্তি ধ্বংস বিষয়ে সার্চ দিলে সাথে সাথে অনেক ঘটনা উঠে আসে। ভাবলাম, এতে দেশের ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন হচ্ছে; গুগুল’র বিরুদ্ধে কি মামলা করা যায়? এরমধ্যে একটি পত্রিকা খবর দিয়েছে, টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে হিন্দু সম্প্রদায়ের দেড়কোটি টাকার জমির ওপর আওয়ামী লীগ নেতাদের নামে সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে দেয়া হয়েছে, অর্থাৎ জবর দখল। শাহরিয়ার কবির চট্টগ্রামে বলেছেন, নির্বাচন হিন্দুদের জন্যে আতঙ্কের। মুন্সিগঞ্জে মৌলি গাঙ্গুলীকে বিয়ের ঠিক আগে অপহরণ করে দুর্বৃত্তরা। পুলিশ মামলা নেয়নি। ভিকটিমের বাবা আদালতে গেলে পুলিশ মামলা নিতে বাধ্য হয়, কিন্তু কাউকে গ্রেফতার বা অপহৃতাকে উদ্ধার করেনা?

সরকার অর্পিত সম্পত্তি বিক্ৰী করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। বোদায় ২৩শে মার্চ ২০১৮ নাবালিকা রাধিকা রানীকে অপহরণ করে দুর্বৃত্ত। ক’টি নাম উল্লেখ করে এফআইআর হয়েছে, পুলিশ কাউকে খুঁজে পাচ্ছেনা? আর মুর্তিভাঙ্গা তো আছেই এসব কারো চোখে পড়ে না? পড়ার কথাও নয়? বাংলাদেশ এখন মহাকাশে, এই মহাঅর্জনের মাঝে দু’চারটে ঘটনা ঘটলে কি আসে যায়? দেশ এগিয়ে যাচ্ছ, হিন্দুদের উচিত ‘সংখ্যালঘু ফালতু ইস্যূ’ নিয়ে মাথা না ঘামিয়ে সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়া? বিশেষত: সামনে নির্বাচন, কি লাভ অতীতের কথা মনে রেখে? দলবেঁধে সবাই আওয়ামী লীগকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করুন। কারণ মুক্তিযুদ্ধের চেতনা রক্ষার দায়িত্ব হিন্দুদের, হেফাজতের নয়, তুরিন আফরোজ-র নয়, কাউয়াদেরও নয়, শুধুই সংখ্যালঘু’র।

হিন্দুরা আওয়ামী লীগের বন্ধু। বিপদে বন্ধুর পরিচয়। হিন্দুদের উচিত সামনের নির্বাচনে বন্ধুর পাশে দাঁড়ানো, যেমনটা তারা দাঁড়িয়েছেন, অতীতের সকল নির্বাচনে। এমনকি ২০১৪’র নির্বাচনে, তখন যা কিছু ভোট পড়েছে, দিয়েছে হিন্দুরা, এজন্যে প্রতিদান হিসাবে মারও খেয়েছে। বন্ধুর কথা উঠলো এ কারণে যে, শুক্রবার ১৮মে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগই সংখ্যালঘুদের সবচেয়ে ভালো বন্ধু’। তিনি আরো বলেছেন, ‘আমাদের ভুলত্রূটি আছে, কিন্তু আমাদের চেয়ে এদেশে মাইনরিটি’র বেটার বন্ধু আর কেউ নেই? তিনি প্রশ্ন করেন, শেখ হাসিনার চেয়ে এদেশে আপনাদের বড় বন্ধু আর কেউ আছে?’ তিনি আক্ষেপের সুরে বলেছেন ‘ছোটখাট বিষয়ে অভিমান করে গুটিয়ে থাকলে শত্রূরা উপকৃত হবে’? এরপরও কি বন্ধু’র উচিত বসে থাকা?

সামাজিক মাধ্যমে মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্যের পক্ষে-বিপক্ষে অসংখ্য মন্তব্য এসেছে। এরমধ্যে ক’টি তুলে ধরছি। একজন বলেছেন, ওবায়দুল কাদের স্যার আমাদের সান্তনা দিচ্ছেন। আর একজন বলেছেন, মানুষ এখন আর বোকা নাই; সংখ্যালঘু নির্যতনের ঘটনা আমাদের মনে আছে। ক্ষোভের সাথে অন্যজন বলেছেন, ভালো বন্ধু এজন্যে যে, হিন্দুরা নির্যাতিত হয়ে বিচার পায়না, কিন্তু আবার আওয়ামী লীগকেই ভোট দেয় প্রাণের ভয়ে? অপর একজন বলেছেন, ভুলত্রূটি হচ্ছে বুঝলাম, কিন্তু বিচার হচ্ছেনা কেন? আরো আছে, একজন বলেছেন, রামু, নন্দীরহাট, অভয়নগর, নাসিরনগর, লংদু, সাঁওতাল পল্লী কোনটাই সংখ্যালঘুরা ভুলে নাই? কোটালী পাড়ায় ইস্কন মন্দিরে ওসি’র হামলা; রমনা কালীমন্দির জবরদখল, ঢাকেশ্বরীর সম্পত্তি আত্মসাৎ; বিশ্বজিৎ হত্যা, সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের অবমাননা, প্রধান বিচারপতি সিনহা উপখ্যান, সম্পত্তি আত্মসাৎ, নাবালিকা ধর্ষণ ও ধর্মান্তকরণ সবই এসেছে।

রসরাজ, উত্তম, বা রাকেশের মিথ্যা মামলার কথা এসেছে। একজন তুহিন আফরোজ’র কথা এনে বলেছেন, ওনার বিরুদ্ধে কেউ টু-শব্দ করছেন না কেন? আর একজন মন্তব্য করেছেন, সবই তেতুল হুজুরের দোয়ার ফসল। একজন বন্ধুত্বের একটি চমৎকার দৃষ্টান্ত দিয়ে বলেছেন, চীন রোজা রাখা নিষিদ্ধ করেছে এবং রোজা রাখার অপরাধে একশ’ রোজাদারকে গ্রেফতার করেছে। মুসলমানদের জোর করে শুয়রের মাংস খাওয়াচ্ছে। এজন্যে বাংলাদেশে মুসুল্লীরা বা কেউ টু-শব্দটি করছেনা, কারণ চীন আমাদের বন্ধু? আর একজন চমৎকার লিখেছেন, ‘হিন্দু-মুসলমান, বৌদ্ধ, খৃস্টান সবার মাঝে একই প্রাণ, মনুষ্যত্ব ভুলোনা, আওয়ামী লীগের প্রাণে ব্যাথা দিওনা’। এমন সব সুন্দর কথাবার্তা সামাজিক মাধ্যম না থাকলে পাওয়া যেতোনা। আর একজন বলেছেন, আওয়ামী লীগের মত বন্ধু থাকলে শত্রূর দরকার নেই? নির্বাচনী বছরে প্রশ্ন উঠছে, প্রবল পরাক্রমশালী মহাজোট সরকার গুটিকয় চাকুরী দেয়া ছাড়া হিন্দুদের জন্যে কি করেছে কেউ কি বলতে পারেন? অত্যাচারের ফলে হিন্দুরা ক্রমান্বয়ে দেশত্যাগ করছে, এটি ঠেকাতে সরকারের কোন পদক্ষেপ কি কারো চোখে পড়েছে? অবশ্য, এসব প্রশ্নের কোন উত্তর নেই, তাই উত্তর দেয়ারও কেউ নেই?

আওয়ামী লীগ সারাক্ষন বিএনপি’র বিরুদ্ধে বলে থাকে, অথচ ২০০১-র সংখ্যালঘু নির্যাতনের বিচারটি করেনা, কেন? তখনকার অত্যাচারের ঘটনার জন্যে তো বিএনপি-জামাতীরা সাঁজা পেতো, তারপরেও বিচারটি হচ্ছেনা কেন? কঠিন প্রশ্ন? ২০০৯-২০১৮’র ঘটনার বিচার না হবার কারণ বোধগম্য, কারণ এতে আওয়ামী লীগাররা ধরা খাবেন, কিন্তু ২০০১-র কারণটা সত্যিই বোঝা দু:সাধ্য? একটা কারণ হতে পারে যে, ওই সময় যারা অত্যাচার করেছিলো, এখন তারা সবাই হয় আওয়ামী লীগ বা হেফাজত? ওবায়দুল কাদেরের ভাষায় ‘কাউয়া’? কাউয়াদের ভোটে আস্থা নেই, তাই ওবায়দুল কাদের ‘ভোটব্যাঙ্ক’ দরবারে হাজির? হিন্দুভোট ছাড়া জেতা যাবেনা? অবশ্য হিন্দু ভোট ছাড়া আওয়ামী লীগ কখনো জেতেনি, অবাধ-নিরপেক্ষ ভোট হলে কখনো জেতবেও না? সমস্যা হলো, আওয়ামী লীগ তো ভোট নিয়েই খালাস, তারা এই ভোটের মূল্যায়ন কখনো করেনি, ধরেই নিয়েছে, ভোট না দিয়ে হিন্দুরা যাবে কোথায়?

তবে এবার আওয়ামী লীগ দেখছে, হিন্দু ভোট আগের মত একশ’ শতাংশ নেই? আওয়ামী লীগ কি এর কারণগুলো বিশ্লেষণ করেছে? আর বিশ্লেষণ করে থাকলে প্রতিকারের কোন পদক্ষেপ কি নিয়েছে? শুধু মিষ্টি কথায় এবার চিড়া ভিজবে বলে তো মনে হয়না? হিন্দুরা এবার সত্যি সমস্যায় আছে, তারা কাকে ভোট দেবে? হিন্দুরা ঢালাও বিএনপিকে ভোট দেবে এমনটা ভাবার কোন কারণ নেই? অনেক জায়গায় মন্দের ভালো হিসাবে আওয়ামী লীগ ভোট পাবে। সংখ্যালঘু নির্যাতনে জড়িত ছিলেন, এমন কোন প্রার্থীকে হিন্দুরা ভোট দেবেনা। তবে যেকোন দলের ভালো প্রার্থী হিন্দুদের ভোট পাবেন। ওবায়দুল কাদের অনেক কথা বলেছেন, ভুল স্বীকার করেছেন, তাকে ধন্যবাদ। তবে, ওবায়দুল কাদের যা বলছেন, হিন্দুরা কিন্তু এসব কথা প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার মুখ থেকে শুনতে চায়! অনেকদিন সংখ্যালঘুরা প্রধানমন্ত্রীর মুখ থেকে কোন কথা শুনেনি?

এরই মধ্যে চমৎকার একটি ঘটনা ঘটেছে, মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের চোখে পড়েছে কিনা জানিনা। ঘটনাটি হচ্ছে, হিন্দুদের শতাব্দী পুরানো শ্মশান দখল করে স্থাপনা নির্মাণ শুরু করেন শিবগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আজিজুল হক। হাইকোর্ট তাকে ভৎসনা করেছে এবং ২৬শে মে’র মধ্যে সাইনবোর্ড টানিয়ে নি:শর্ত ক্ষমা চাওয়ার নির্দেশ দিয়েছে। ‘ঠাকুর ঘরে কে রে? আমি কলা খাইনা’?

শিতাংশু গুহ, কলাম লেখক।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.