২০শে আগস্ট, ২০১৮ ইং | ৫ই ভাদ্র, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | সকাল ৬:৫৩
সর্বশেষ খবর

কর্মী সভার বিরিয়ানি খেয়ে ৬ শতাধিক লোক অসুস্থ

ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ ঝিনাইদহ-৩ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী পারভীর তালুকদার মায়া’র কর্মী সভার বিরিয়ানি খেয়ে পৃথক দুই দিনে (১৬ ও ১৭ মে) কোটচাঁদপুর ও মহেশপুর উপজেলায় ৬ শতাধিক লোক অসুস্থ হয়ে হাসপাতাল ও ক্লিনিকে ভর্তি হয়েছে।

এদের মধ্যে কোটচাঁদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ২৫০ জন, মহেশপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১০০ জন কে ভর্তি করা হয়েছে। অসুস্থ বাকিরা বিভিন্ন ক্লিনিক ও বাড়িতে চিকিৎসা নিচ্ছেন। তার গণ জোয়ারে ঈর্ষান্বিত হয়ে নিজ দলের প্রতিপক্ষ রাজনৈতিক নেতারা ষড়যন্ত্র করে এ ঘটনা ঘটিয়েছেন বলে তিনি সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেন।

কোটচাঁদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অসুস্থ হয়ে ভর্তি হওয়া গোবিন্দপুর গ্রামের আবুল কাশেম তোতার ছেলে সজিব হোসেন (২৬) জানান, ঝিনাইদহ-৩ আসন( মহেশপুর ও কোটচাঁদপুর) থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী পারভিন তালুকদার মায়া বুধবার (১৬ মে) বিকেলে কোটচাঁদপুর উপজেলা শহরে কর্মী সভা করেন। কর্মী সভা শেষে তাদের মধ্যে প্যাকেট বিরিয়ানি দেয়া হয়। তিনি ২ প্যাকেট বিরিয়ানি নিয়ে বাড়িতে যেয়ে ৪ জনে মিলে খান। খাওয়ার পর বাড়ির ৪ জন সদস্য ( মা জল্পনা, স্ত্রী মাহফুজা, ফুফু আনোয়ারা ও নিজে) অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে তারা হাসপাতালে ভর্তি হন।

উপজেলার পাঁচলিয়া গ্রামের আলমসাধু চালক হাবিবুর রহমান জানান, তিনিও কর্মী সভা শেষে সেখান থেকে বিরিয়ানি এনেছিলেন। বিরিয়ারি খাওয়ার পর তিনি ও তার ৫ বছরের ছেলে মেহেদী হাসান অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। এভাবে শত শত লোক ওই বিরিয়ানি খেয়ে অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। একের পর এক রোগি আসার কারনে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ রোগিদের জায়গা দিতে পারছেন না। হাসপাতালে বেড, ফ্লোর, বারান্দাসহ সকল স্থানে রোগীতে ভরে গেছে।

কোটচাঁদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এর আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ নাজমুস শাকিব বলেন, ভর্তি হওয়া রোগিদের পাতলা পায়খানা, পেটে ব্যথা ও বমি হচ্ছে। সম্ভাবত ফুড পয়জনিংয়ের কারনে এমনটি হয়েছে।

এর আগে মঙ্গলবার (১৫ মে) পারভীন তালুকদার মায়া মহেশপুরের হাইস্কুল মাঠে এক কর্মীসভা ও র‌্যালীর আয়োজন করেন। কর্মী সভা শেষে সেখানেও তাদের মধ্যে বিরিয়ানি দেয়া হয়। ওই বিরিয়ানি খেয়ে পরদিন বুধবার (১৬ মে) ১০০ জন অসুস্থ হয়ে মহেশপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হয়।

মহেশপুর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রামচন্দ্রপুর গ্রামের হাবিবুর রহমান জানান, সভা শেষে এক প্যাকেট বিরিয়ানি পান তিনি। বাড়ি ফিরে স্ত্রী ও ছেলেসহ খান। রাত ১১ টার দিকে ৩ জনেরই বমি ও পাতলা পায়খানা শুরু হয়। পরে তাদেরকে মহেশপুর হাসপাতালে এনে ভর্তি করা হয়। ফতেপুর গ্রামের একরামুল খান জানান, বিরিয়ানি খাওয়ার পর ভোররাতে পেটে ব্যাথা ও বমি পায়খানা শুরু হয়। তাকে সকালে এনে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অসুস্থদের মধ্যে মহেশপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৪৫ জন, কোটচাঁদপুরে ১৩ জন ও জীবননগরে ১০ জনকে ভর্তি করা হয়। বাকিরা বাড়িতে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

মহেশপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা: আফসার আলী বলেন, খাদ্যে বিষক্রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে ৪৫ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। চিকিৎসায় তাদেরকে সারিয়ে তোলা হচ্ছে।এ ব্যাপারে ঝিনাইদহ-৩ (কোটচাঁদপুর ও মহেশপুর) আসন থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী পারভীন তালুকদার মায়া বলেন, প্রথম দিন গরমে হয়ত সবাই বিরিয়ারি খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন তিনি সেটা মনে করেছিলেন।

এরপর বুধবার (১৬ মে) কোটচাঁদপুর উপজেলায় কর্মসভা শেষে নেতাকর্মীদের সাথে তিনিও একই খাবার খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েন। এরপর একের পর এক নেতাকর্মী ও সমর্থকরা অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। আরো বলেন, গত পরশু দিন কর্মী সভার পর ৬ জন রোগী মহেশপুর হাসপাতালে ভর্তি হয়। তাদের কে নবী নেওয়াজের লোক ( বর্তমান এমপি) কলা,রুটি ও চিড়া কিনে দিয়ে গেছে এবং তাদের বলতে বলেছে তোমরা বলো বিরিয়ানি খেয়ে এমন হয়েছে।

তিনি সাংবাদিকদের কাছে মোবাইল ফোনে আরো অভিযোগ করে বলেন, এতো পুরো চক্রান্ত। ওরাই (নিজ দলের রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ) করেছে বার্বুচিদের মাধ্যমে। তিনি আরো বলেন, আমার গণজোয়ার ঠেকানোর কোন সুযোগ নেই দেখে তখন তারাই বাবুর্চির মাধ্যমে খাবারের মধ্যে কি যেন মিলায়ে আমার নেতাকর্মি ও সমর্থকে অসুস্থ করে দিয়েছে। আমি এ ঘটনার তদন্তপূর্বক বিচার চাই।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.