রবিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২০, ০১:৫২ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
মেহেরপুরের ভাষা সৈনিক নজির হোসেন বিশ্বাস আর বেঁচে নেই মেহেরপুরের বুড়িপোতা সীমান্ত ফাঁড়ির থেকে ১৫০ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার নবীগঞ্জ কেলিকানাইপুরে বার্ষিক লীলা সংকীর্তন মহোৎসব সম্পন্ন বুথ দখল করে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন(ইভিএম) এ জাল ভোট চতুর্থ শিল্প বিপ্লবে জ্ঞানভিত্তিক সব কিছুই পরিবর্তন আসবে প্রযুক্তির মাধ্যমে -অর্থমন্ত্রী ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করেছে জিয়া, এরশাদ ও খালেদা জিয়ারা -নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী যাদের মা-বাপের ঠিক নেই তারাই কেন্দ্রীয় আইনের বিরোধিতা করছে -অশ্লীল আক্রমনে দিলীপ ভোলায় নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে চলছে জাটকা নিধনের মহোৎসব ভোলার চরফ্যাসনে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ২২ দোকান ভস্মিভূত দুদিন পিছিয়ে পহেলা ফেব্রুয়ারি ঢাকা সিটি নির্বাচন

ব্রাজিলে বাংলাদেশ দূতাবাসে পালিত হলো বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস

ব্রাজিলে বাংলাদেশ দূতাবাসে পালিত হলো বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস

ঐতিহাসিক ১০ই জানুয়ারিতে আনন্দ আর উদ্দীপনার মধ্যে  ব্রাজিলের বাংলাদেশ দূতাবাসে পালিত হলো বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস। আপামর বাঙালি জনগণ জীবন বাজি রেখে বঙ্গবন্ধুর নেতৃতে প্রিয় স্বাধীনতা ছিনিয়ে আনলো ১৯৭১ সালের ১৬ই ডিসেম্বর। কিন্তু বিজয় আমাদের পরিপূর্ন হলো না। বাঙালির স্বাধীনতা সংগ্রামের অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু তখনও পাকিস্তানের কারাগারে। ঐক্যবদ্ধ বাঙালি সেদিন আবার রাস্তায় নামলো। স্লোগানে স্লোগানে আরো একবার মুখরিত হলো বাংলাদেশ : জেলের তালা ভাঙবো, শেখ মুজিবকে আনবো।

পাকিস্তান সরকার শেষ পর্যন্ত এই উত্তাল আন্দোলন ও  ৯১০০০ পাকিস্থানি সেনার বিনিময়ের কাছে নতিস্বীকার করে। বাঙালির প্রানপ্রিয় নেতা মুক্তি পেয়ে লন্ডন আর দিল্লী হয়ে ১৯৭২-এর ১০ই জানুয়ারি পা রাখেন তাঁর প্রিয় স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশে। সারা বাংলাদেশের মানুষ সেদিন বরণ করে নেয় তাদের প্রিয় নেতাকে। এভাবেই ঐতিহাসিক ১০ই জানুয়ারির প্ৰেক্ষাপট বর্ননা করলেন ব্রাজিলে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোঃ জুলফিকার রহমান।

রাষ্ট্রদূত জুলফিকার আরো বলেন যে, পাকিস্তান-আন্দোলনের অন্যতম নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব ১৯৪৭ সালের দেশভাগের সময়েই বুঝতে পেরেছিলেন এই পাকিস্তান তিনি চাননি। পরবর্তীতে এক সাক্ষাৎকারে তাই তিনি বলেছিলেন যে, বাংলাদেশের আইডিয়াটা তাঁর মাথায় আসে সেই ১৯৪৭ থেকেই। সেকারনেই তিনি ১৯৪৮-র বাংলাভাষা আন্দোলনের নেতৃত্ব দিলেন–বাঙালির আত্মপরিচয় আর সংষ্কৃতি বাঁচানোর সংগ্রামে।

তারপর স্বাধিকারের সেই দীর্ঘ আন্দোলনে অবিচলিত নেতৃত্ব দিলেন বঙ্গবন্ধু। অর্জিত হলো বাংলার মহান স্বাধীনতা। স্বাধীনতা আন্দোলনের ত্রিশ লক্ষ শহীদ আর দুই লক্ষাধিক সম্ভ্রম হারানো নারীর প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে রাষ্ট্রদূত জুলফিকার উপস্থিত সুধীমন্ডলীর দৃষ্টি আকর্ষণ করলেন ১০ই জানুয়ারিতে জাতির পিতার  দিকনির্দেশনামূলক বক্তব্যে,যখন তিনি বললেল, “এ স্বাধীনতা আমার পূর্ণ হবে না যদি বাংলার মানুষ পেট ভরে ভাত না পায়, এ স্বাধীনতা আমার পূর্ণ হবে না যদি বাংলার মা-বোনেরা কাপড় না পায়, এ স্বাধীনতা আমার পূর্ণ হবে না যদি এ দেশের যুবক যারা আছে তারা চাকরি না পায়। মুক্তিবাহিনী, ছাত্রসমাজ তোমাদের মোবারকবাদ জানাই তোমরা গেরিলা হয়েছ, তোমরা রক্ত দিয়েছ, রক্ত বৃথা যাবে না, রক্ত বৃথা যায় নাই।”

রাষ্ট্রদূত বলেন যে, বঞ্চনাহীন বঙ্গবন্ধুর সেই সোনার বাংলা গড়ার পথে বাংলাদেশ আজ অনেকটা পথ পাড়ি দিয়েছে। তবু সবার জন্য স্বাধীনতাকে অর্থবহ করার জন্য বঙ্গবন্ধুর যে স্বপ্ন ছিল, তা আমরা আজো বাস্তবায়ন করতে পারিনি। বঙ্গবন্ধুকন্যার নেতৃত্বে উন্নয়নের মহাসড়কে অবস্থান করা বাংলাদেশে একটি শোষণ-বঞ্চনাহীন সমাজ প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার জন্য এবং বাংলাদেশের উন্নয়ন যাত্রায় অংশগ্রহেণর জন্য তিনি উদ্দাত্ত আহবান জানান। মুজিব-বর্ষের বছরব্যাপী দূতাবাসের আয়োজনে অংশগ্রহনের জন্যও তিনি বাংলাদেশী ও ব্রাজিলীয়দের আমন্ত্রণ জানান।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯ এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit