রবিবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২০, ০১:৫৯ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
মেহেরপুরের ভাষা সৈনিক নজির হোসেন বিশ্বাস আর বেঁচে নেই মেহেরপুরের বুড়িপোতা সীমান্ত ফাঁড়ির থেকে ১৫০ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার নবীগঞ্জ কেলিকানাইপুরে বার্ষিক লীলা সংকীর্তন মহোৎসব সম্পন্ন বুথ দখল করে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন(ইভিএম) এ জাল ভোট চতুর্থ শিল্প বিপ্লবে জ্ঞানভিত্তিক সব কিছুই পরিবর্তন আসবে প্রযুক্তির মাধ্যমে -অর্থমন্ত্রী ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করেছে জিয়া, এরশাদ ও খালেদা জিয়ারা -নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী যাদের মা-বাপের ঠিক নেই তারাই কেন্দ্রীয় আইনের বিরোধিতা করছে -অশ্লীল আক্রমনে দিলীপ ভোলায় নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে চলছে জাটকা নিধনের মহোৎসব ভোলার চরফ্যাসনে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ২২ দোকান ভস্মিভূত দুদিন পিছিয়ে পহেলা ফেব্রুয়ারি ঢাকা সিটি নির্বাচন

জনি হত্যা মামলায় এসআই জাহিদের বিরুদ্ধে ২ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ

পুলিশ হেফাজতে হত্যা

বিশেষ প্রতিবেদক অসিত কুমার ঘোষ (বাবু): পুলিশি হেফাজতে জনি নামে এক যুবক হত্যা মামলায় পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) জাহিদুর রহমান জাহিদসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে আরও ২ জন সাক্ষ্য দিয়েছেন।

মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশ এ সাক্ষীদের সাক্ষ্য গ্রহণ করেন এবং পরে আগামী ১৫ জানুয়ারি পরবর্তী সাক্ষ্য গ্রহণের দিন ধার্য করেন।

সাক্ষীরা হলেন, মিরপুর আধুনিক হাসপাতালের তৎকালীন ওয়ার্ড বয় সেন্টু রহমান হিরা ও পল্লবী থানার কনস্টেবল মো: মুন্না। এ নিয়ে ১৯ জন আদালতে সাক্ষ্য দিলেন।

মামলার অপর আসামীরা হলেন, পল্লবী থানার এসআই রাশেদুল ইসলাম ও এসআই কামরুজ্জামান মিন্টু এবং পুলিশের সোর্স রাশেদ ও সুমন।

মামলাটিতে ২০১৬ সালের ১৭ এপ্রিল আসামীদের বিরুদ্ধে চার্জগঠন করেছে আদালত। পরে হাইকোর্টে আসামীদের আবেদনে দীর্ঘদিন মামলাটি বিচার বন্ধ ছিল।

পুলিশ হেফাজতে নির্যাতন করে মারার অভিযোগে ২০১৪ সালের ৭ আগস্ট নিহতের ভাই ইমতিয়াজ হোসেন রকি ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতে এ মামলা দায়ের করেন।

ওইদিনই আদালত মামলাটি বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ দেন। ২০১৫ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি ঢাকা মহানগর ম্যাজিস্ট্রেট মারুফ হোসেন বিচার বিভাগীয় তদন্ত শেষে ৫ জনকে অভিযুক্ত করে প্রতিবেদন দাখিল করেন।

মামলার অভিযোগে বলা হয় ২০১৪ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি দিবাগত রাতে পল্ল¬বী থানার ইরানি ক্যাম্পে জনৈক বিল্লালের গায়ে হলুদের অনুষ্ঠান ছিল। নিহত জনি, তার ভাই মামলার বাদী রকিসহ অন্যান্য সাক্ষীরা সে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

রাত ২টার দিকে পুলিশের সোর্স এ মামলার ৭ নম্বর আসামী সুমন মদ খেয়ে স্টেজে উঠে মেয়েদের উত্যক্ত করছিলেন। জনি তাকে প্রথমে স্টেজ থেকে নামিয়ে দেন। কিন্তু দ্বিতীয়বার সুমন একই কাজ করলে সুমনের সঙ্গে তার কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে জনি সুমনকে থাপ্পর দিলে সে আধা ঘণ্টা পর এসআই জাহিদসহ ২৫/২৬ জন পুলিশ নিয়ে বিয়ে বাড়িতে এসে ভাংচুর করে নিহত জনি, রকিসহ বেশ কয়েকজনকে ধরে নিয়ে যায়। এরপর এসআই জাহিদসহ অপর আসামীরা তাদের পল্লবী থানা হাজতে হকিস্টিক ও ক্রিকেটের স্ট্যাম্প দিয়ে বেদম প্রহার করেন। জাহিদ জনির বুকের ওপর চড়ে লাফালাফি করেন।

জনি এ সময় একটু পানি খেতে চাইলে জাহিদ তার মুখে থুথু ছুরে মারে। নির্যাতনে মামলার বাদী রকি জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। তার বড় ভাই জনিকে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় ঢাকা ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরহ ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করে। পুলিশি নির্যাতনে মৃত্যুর ঘটনা ধামাচাপা দিতে ইরানি ক্যাম্প ও রহমত ক্যাম্পের মধ্যে মারামারির মিথ্যা কাহিনী দেখিয়ে জনি নিহত হয় বলে দেখানো হয়।

উল্লেখ্য, ঝুট ব্যবসায়ী সুজনকে পুলিশ হেফাজতে একইভাবে মৃত্যুর ঘটনার আরেক মামলায়ও আসামী এসআই জাহিদুর রহমান জাহিদ।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯ এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit